Connect with us

Bangla Serial

Nabab Nandini: ‘নবাব নন্দিনী’ ধারাবাহিকে একসাথে নারী নির্যাতন থেকে পুরুষ নির্যাতন সব দেখানো হয়! ‘এসব কি অসভ্যতামো?’, বিরক্ত দর্শক

Published

on

বাংলা টেলিভিশনের জনপ্রিয় এবং নতুন ধারাবাহিক হল ‘নবাব নন্দিনী’। যেখানে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছে অভিনেতা রিজওয়ান রাব্বানী শেখ এবং অভিনেত্রী ইন্দ্রানী পাল। এই ধারাবাহিকে প্রথম থেকে দেখানো হয়েছে নবাব খুব রাগী এবং রকচটা একটি ছেলে যাকে ঠান্ডা করতেই ব্যস্ত নন্দিনী।প্রসঙ্গত বাংলা টেলিভিশনে দেখানো হত যৌথ পরিবার এবং পারিবারিক মিলেমিশের ঘটনা। তবে সম্প্রতি এই ধারাবাহীকে দেখানো হচ্ছে শুধুই মারপিট এবং অত্যাচার।

প্রসঙ্গত বাংলা ধারাবাহিকে আগে বধূ নির্যাতন এবং নারীদের উপর অত্যাচার এসব দেখানো হলেও সম্প্রতি ধারায় কিছুটা পরিবর্তনে এসেছিল। এখন ধারাবাহিকে বেশি জোর দেওয়া হয় নারীদের উত্থানের গল্প নিয়েই। কিন্তু তার মধ্যেই ‘নবাব নন্দিনী’ ধারাবাহিকে এমন একটি দৃশ্য দেখানো হচ্ছে যা নিয়ে বিরক্ত দর্শক।এই ধারাবাহিকে নবাব এবং নন্দিনী চরিত্র ছাড়া আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র রয়েছে যার নাম কমলিকা গুহ ঠাকুর। কমলিকা হল নবাবের বৌদি যে তাদের পুরো সংসারটা চালায়। এই চরিত্রে অভিনয় করছে অভিনেত্রী অনন্যা বিশ্বাস।

ধারাবাহিকের গল্পে কমলিকা হল নবাবের পরিবারের একমাত্র কর্তৃ। সে পরিবারের ওপর তার দাপট বজায় রাখার জন্য পরিবারের অন্য কাউকে মাথা তুলতে দেয় না। কিন্তু নবাবের সাথে নন্দিনীর বিয়ে হওয়ার পরে সে বাড়ির সবাইকে কাজ করতে উদ্যত করে এবং কমলিকার স্বামী দেবাঞ্জনকেও তার দিকে টানে। আর তার ফলেই হয় বিপদ। কমলিকা দেবাঞ্জনের ওপর কার্যত অত্যাচার শুরু করে। ঘরের মধ্যে দরজা বন্ধ করে হাত মুচড়ে ধরে। এবং মুখে বলে ‘স্পাইনলেস’, ‘ওয়ার্থলেস’, ইত্যাদি অপমানজনক কথা। আরে এই অত্যাচারের বিরুদ্ধে তার স্বামী একবারের জন্যও প্রতিবাদ করেনি আর তাই দেখে সমালোচনা শুরু করেছে নেটিজেনরা এই ধারাবাহিক নিয়ে।

তাদের মতে ধারাবাহিকে এত অত্যাচার কেন? একদিকে নবাব তার বউয়ের উপর অত্যাচার করে এবং অন্যদিকে কমলিকা তার স্বামীর উপর অত্যাচার করছে। অনেক নেট নাগরিক মন্তব্য করেছেন,’কারোও ওপরই অত্যাচার দেখানো ঠিক নয়, সে পুরুষ হোক বা নারী, এতো ভায়োলেন্স কেন?’একজন নেট নাগরিকের স্বপক্ষে বলেন যে, ‘ এমন রোজ কত ঘরে হচ্ছে, বাস্তব তুলে ধরছেন সিরিয়ালে’।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending