Mithai: যা লিখেছিলাম তাই হল! মিঠাইয়ের ঘরেই ফুলশয্যা হবে নীপা-রুদ্রদা’র, ভাইরাল হল ফুলশয্যার বেশে নীপা-রুদ্রের ছবি, পেছনে দেখা যাচ্ছে গোপাল ঠাকুরের প্রদীপ,ঘরের পোস্টার, ‘মিঠাইয়ের জীবনটাই এই’, দুঃখ দর্শকদের – Tolly Tales
Connect with us

Bangla Serial

Mithai: যা লিখেছিলাম তাই হল! মিঠাইয়ের ঘরেই ফুলশয্যা হবে নীপা-রুদ্রদা’র, ভাইরাল হল ফুলশয্যার বেশে নীপা-রুদ্রের ছবি, পেছনে দেখা যাচ্ছে গোপাল ঠাকুরের প্রদীপ,ঘরের পোস্টার, ‘মিঠাইয়ের জীবনটাই এই’, দুঃখ দর্শকদের

Published

on

আমরা কয়েক ঘন্টা আগেই লিখে ছিলাম হয়তো কাল রাত্রি টা মিঠাইয়ের ঘরেই হবে রুদ্র এবং নীপার বিয়ে। আমাদের খবর এবার সত্যি প্রমাণিত হলো এবং দেখা গেল যে মিঠাইয়ের ঘরেই আয়োজিত হয়েছে দুজনের ফুলশয্যা। সেই এক্সক্লুসিভ ছবি আপনাদেরকে আমরা দেখাবো।

মিঠাইতে গতকাল রুদ্র আর নীপার হৈ হৈ করে বিয়ে হয়ে গেছে গোডাউনে তবে কাকিমা এসেও কিছু করতে পারেনি কারণ কাকার নির্দেশে রুদ্র তড়িঘড়ি সিঁদুর পরিয়ে দিয়েছে নীপাকে।কাকিমা মেনে নিতে না পেরে জ্ঞান হারিয়ে পড়ে গেছে কিন্তু পরবর্তীকালে কাকিমাকে বোঝালে কাকিমা ঠিক মেনে নেবে এবং রুদ্রকে নিজের জামাই হিসেবে খুবই ভালবাসতে শুরু করবে। এখন বিয়ের পর সবাইকে মনোহরাতে নিয়ে আসা হয়েছে। রুদ্রর মা বাবা নেই তাই মনে করা হচ্ছে নিপা অধিকাংশ সময় মনোহরাতেই থাকবে।যদিও তার দুই দিদি নিজেদের শ্বশুরবাড়ি ছেড়ে বাপের বাড়িতে থাকতেই ভালবাসে। সেরকম নীপাও নিশ্চয়ই তাই করবে।

পরপর বিয়ে দেখানো হলো ধারাবাহিকে তাই আশা করা যাচ্ছে যে আজকের টিআরপিতে একটু হলেও ভালো ফল করবে মিঠাই‌। ইতিমধ্যেই আমরা দেখতে পেয়েছি নতুন প্রোমো যেখানে মিঠাই কে গুলি মারছে ওমি আগারওয়াল। মিঠাই বাঁচবে কি মরবে সেটা দেখতে হবে আগামী কয়েকদিনের তবে মিঠাইয়ের মৃত্যু হবে না এ কথা আমরা বুঝতেই পারছি কিন্তু এবার ওমি আগারওয়ালকে কেউ ছাড়বে না।

এর মধ্যেই রুদ্রদা চলে এসেছেন বরের বেশে এবং তাদের ফুলশয্যার শুটিং এর কিছু ছবি হল ভাইরাল। যেখানে আমরা নিপাকে সিঁদুর পরে একদম রিসেপশনের সাজে দেখতে পাচ্ছি আর রুদ্রদা ও পাঞ্জাবি পড়ে রেডি। কিন্তু এটা তো মিঠাইয়ের ঘর! ওই তো পেছনে দেখা যাচ্ছে সিদ্ধার্থের লাগানো বিটলসের পোস্টার। গোপাল ঠাকুরের প্রদীপও দেখা যাচ্ছে।

অর্থাৎ বুঝতেই পারছেন ফুলশয্যাটা হবে মিঠাই এর ঘরেই।আমরা ভেবেছিলাম কালরাত্রিতে হবে কিন্তু একধাপ এগিয়ে লেখিকা তাদেরকে মিঠাই এর ঘরে ফুলশয্যা করিয়ে দিচ্ছেন। আর এটা দেখলেই এবার রেগে যাবেন না কারণ নীপার তো নিজের একটা ঘর ছিল। সেখানে কি ফুলশয্যাটা করা যেত না? সবকিছুর জন্য কি মিঠাইয়ের ঘরটা বারোয়ারি হয়ে গেছে নাকি? না এত বড় বাড়ি মনোহরাতে কোন ঘর নেই?

এই জিনিসটাই খুব খারাপ লাগে মিঠাই ভক্তদের যে লেখিকার এবার একটু এদিকে মন দেওয়া উচিত কারণ মিঠাই আর সিদ্ধার্থ স্বামী-স্ত্রী, তাদের নিজেদের কিছু পার্সোনাল মুহূর্ত রয়েছে। সব সময় তাদের ঘরে বাড়ির লোক ঢুকে পড়বে আর তারা বাইরে বাইরে কাটাবে এটা হতে পারে না।মিঠাই ভালো তাই কিছু বলে না কিন্তু এটা যদি শ্রীতমা হতো তাহলে মজা দেখিয়ে দিত।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending